ফতুল্লায় নাকে-মুখে বালু ঢুকিয়ে নারী গার্মেন্টস শ্রমিককে হত্যা

নিজস্ব প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় নাকে-মুখে বালু ঢুকিয়ে শ্বাসরোধে এক গার্মেন্টস শ্রমিককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। নিহতের নাম চাঁদনী আক্তার (২৩)। ঘটনার পর থেকে চাঁদনীর স্বামী সুমন মিয়া (৩০) পলাতক। পলাতক থেকেই সুমন তার শ্বশুরবাড়িতে ফোন করে চাঁদনীর লাশ কোথায় আছে তা জানিয়ে দেয়। নিহতের পরিবারের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল দুপুরে ফতুল্লার উত্তর নরসিংপুর টাওয়ার এলাকার একটি ঝোপ থেকে চাঁদনীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ একশ’ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। লাশের নাকে-মুখে প্রচুর বালু ঢুকানো ছিল।

নিহত চাঁদনী আক্তার বরিশাল জেলার বরগুনার আবুল মিয়ার মেয়ে। সে ফতুল্লার পঞ্চবটি বিসিক শিল্পনগরীর লতিফ গার্মেন্টসের শ্রমিক। ফতুল্লার মুসলিমনগর নয়াবাজার এলাকায় ভাড়া থাকত তারা।

নিহত চাঁদনীর মা আনোয়ারা বেগম জানান, তিন বছর আগে গার্মেন্টসে চাকরিরত অবস্থায় তার মেয়ের সঙ্গে ট্রাকচালক সুমনের পরিচয়ের সূত্র ধরে বিয়ে হয়। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই সুমন নানা কারণে চাঁদনীকে নির্যাতন করত। এ কারণে কিছুদিন ধরে চাঁদনী ও সুমন আলাদা থাকছিল। গত শনিবার রাতে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে চাঁদনীকে তুলে নিয়ে যায় সুমন। গতকাল সকালে সুমন তাদের ফোন করে চাঁদনীর লাশ কোথায় আছে সে সন্ধান দেয়। পরে পুলিশের সহায়তায় দুপুরে ফতুল্লার উত্তর নরসিংপুর টাওয়ার এলাকার একটি ঝোপ থেকে চাঁদনীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি এবং অভিযুক্ত সুমনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Share on Facebook228Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0Print this page