মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজস্ব ফাঁকি; ১১২ গার্মেন্টসকে দেড় কোটি টাকা জরিমানা

ডেস্ক রিপোর্ট : কাঁচামাল আমদানিতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে ১১২টি তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান। চট্টগ্রাম কাস্টমসের তদন্তে এ জালিয়াতির তথ্য উঠে এসেছে।

কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, তদন্তে এসব গার্মেন্টসের নামে আসা ১৫৭টি চালানে চার ধরনের অনিয়ম পেয়েছেন শুল্ক কর্মকর্তারা। গত নভেম্বর থেকে জুন পর্যন্ত এসব পণ্য আমদানি করা হয়। অনিয়মের দায়ে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ফাঁকি দেয়া রাজস্ব ছাড়াও ১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

রাজস্ব ফাঁকি শনাক্ত করার পর থেকে এসব প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের চালান ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় এনে বাড়তি তদারকি করা হচ্ছে। এতে সম্প্রতি নতুন করে বেশকিছু চালানেও অনিয়ম ধরা পড়েছে বলে জানিয়েছেন কাস্টমসের কর্মকর্তারা।

রফতানি আয়ের প্রধান উত্স হওয়ার সুবাদে পণ্য আমদানিতে শুল্কমুক্ত (বন্ড) সুবিধা, দ্রুত পণ্য ছাড়করণ ও কায়িক পরীক্ষায় শিথিলতাসহ নানা সুবিধা পেয়ে থাকেন তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারকরা। যথাযথ সময়ে প্রস্তুত পণ্য ডেলিভারি দেয়ার সুবিধার্থে এসব সুবিধা দেয়া হয়ে থাকে। তবে কাঁচামাল আমদানিতে এসব সুবিধা অপব্যবহারের অভিযোগে বিভিন্ন সময়ে জরিমানা গুনতে হয়েছে তৈরি পোশাক খাতের বহু প্রতিষ্ঠানকে। সর্বশেষ ১১২টি তৈরি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেল।

কাস্টমস সূত্র জানিয়েছে, অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অনিয়ম পাওয়া গেছে গাজীপুরের গ্যালাক্সি সোয়েটার অ্যান্ড ইয়ার্ন ডায়িং লিমিটেডের আমদানি চালানে। গত আট মাসে প্রতিষ্ঠানটির ১৩টি চালানে মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে। ছয়টি চালানে মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে ফ্যাশন ক্রাফটস অ্যান্ড ডিজাইন লিমিটেড।

কাস্টমের তদন্তে ঢাকার জয়দেবপুরের লিজ ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, লিটুন ফ্যাব্রিক্স লিমিটেড এবং ফ্যাশন নিট গার্মেন্টস লিমিটেডের বিরুদ্ধে পাঁচটি চালানে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এছাড়া হামজা টেক্সটাইল লিমিটেড, কেয়া নিট কম্পোজিট লিমিটেড, ইউনিলাইনস টেক্সটাইল লিমিটেড, এইচ আর টেক্সটাইল লিমিটেড, এস এম নিটওয়্যার লিমিটেড, চৈতী কম্পোজিট লিমিটেডসহ ২১টি প্রতিষ্ঠানের একাধিক চালানে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

তদন্তে দেখা গেছে, এসব প্রতিষ্ঠান চার ধরনের মিথ্যা তথ্য দিয়ে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে। ১৫৭টি চালানে আমদানি পণ্যের পরিচিতি তালিকা (এইচএস কোড) পরিবর্তন, ঘোষণার অতিরিক্ত পণ্য আমদানি, সিপিসি (কাস্টমস প্রসিডিউর কোড) পরিবর্তন ও নথিতে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, অনিয়মের দায়ে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ফাঁকি দেয়া রাজস্ব ছাড়াও ১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের চালান ‘ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায়’ এনে বাড়তি তদারকি করার সময়ও নতুন কিছু চালানে অনিয়ম শনাক্ত করা হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে এখনো তদন্ত চলছে।

মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজস্ব ফাঁকির ব্যাপারে চট্টগ্রাম কাস্টমসের সহকারী কমিশনার (এআইআর শাখা) মুকিতুল হাসান বণিক বার্তাকে বলেন, গত অর্থবছরের শেষ আট মাসে ১১২টি তৈরি পোশাাক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের অনিয়মের তালিকা পেয়েছি। এর পর থেকে এসব প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের চালান ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় এনে আমরা বাড়তি তদারকি করছি। সম্প্রতি নতুন করে বেশকিছু চালানেও অনিয়ম শনাক্ত করতে পেরেছি।

তিনি আরো বলেন, তৈরি পোশাক শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা থাকায় এসব চালানে তেমন তদারকি করা হয়নি। বরং উত্পাদনমুখী কারখানা হিসেবে কায়িক পরীক্ষা ছাড়াই দ্রুত খালাস দেয়া হয়েছে। অন্য শিল্প-কারখানা কিংবা আমদানিকারকরা এসব সুবিধা পায় না। অথচ এসব বাড়তি সুবিধার অপব্যবহার করে রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হচ্ছে। তাই যেসব প্রতিষ্ঠানের রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার আশঙ্কা আছে, তাদের তালিকা করে সব চালানেই বাড়তি তদারকি করা হচ্ছে। আশা করি, এতে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

সুত্র : দৈনিক বনিকবার্তা

Share on Facebook52Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0Print this page