ঢাকা শনিবার, ডিসেম্বর ৭, ২০১৯



পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে পোশাক শিল্প পেশাজীবিদের জন্য রুপালী আবাসনে ১০% ছাড়

নিজস্ব প্রতিনিধি: মানুষের অন্যতম মৌলিক চাহিদা বাসস্থান। শহুরে পেশাজীবি মানুষগুলোর সারাজীবনের স্বপ্ন কষ্টার্জিত টাকায় একটি স্বপ্নের নীড়, নিজেরা কষ্ট করে হলেও ছেলেমেয়েদের জন্য একটা মাথা গোজার ঠাঁই গড়ে দেয়া। কিন্তু ঢাকা ও ঢাকার আশেপাশে সরকারী-বেসরকারী উদ্যোগে নানান অভিজাত আবাসন প্রকল্প গড়ে উঠলেও তা সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে চলে গেছে। ফলে কঠিন হয়ে পড়েছে নিজের একটি প্লট বা ফ্লাট কেনার স্বপ্নপূরণ। সাধ আর সাধ্যের বিস্তর ব্যবধানে এক খন্ড জমি কিংবা ছোট্ট একটি ফ্ল্যাটের মালিক হওয়া এখন রীতিমতো অপূরণীয় স্বপ্নের মতো। কিন্তু এই অপূরণীয় স্বপ্নের বাস্তবায়নের লক্ষ্যে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছে রুপালী আবাসন। ভাড়ায় টাকায় জমি ও ফ্ল্যাটের মালিক। নামমাত্র পরিমাণে এককালিন মূল্য পরিশোধ আর মাসিক সহজ কিস্তিতে জমি আর ফ্ল্যাটের নিজস্ব মালিকানা হস্তান্তর করছে রুপালী আবাসন।

রাজধানীর অদুরে গাজীপুর জেলার গাজীপুরার পূর্ব পাশে ঢাকা ময়মনসিংহ রোড থেকে আধা কিলোমিটার দুরুত্বে অবস্থিত রুপালি আবাসন সিটি। মসজিদ কবরস্থান, মাদরাসা, স্কুল কলেজ, হসপিটাল, সুপার মার্কেট, পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট ও খেলার মাঠসহ আধুনিক নাগরিক সুবিধার সকল সুবিধাসহ নিরিবিল পরিবেশে গড়ে উঠছে রুপালি আবাসন সিটি। এবারের পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে রুপালী আবাসন সিটি দিচ্ছে ৫-১০% পর্যন্ত মূল্য ছাড়। এ অফার শুধুমাত্র পোশাক শিল্প পেশাজীবিদের জন্য প্রযোজ্য।

রুপালী আবাসনের কর্ণধার মি. মোবারক করিম আরএমজি টাইমসকে জানান, পোশাক শিল্পকে কেন্দ্র করে গাজীপুর অঞ্চল যেনো নতুন ঢাকায় পরিণত হয়েছে। উন্নত হচ্ছে সকল ধরনের অবকাঠামো। ঢাকার অদুরে নিরিবিলি পরিবেশে রুপালী আবাসন গড়ে তোলার পেছনে আমাদের লক্ষ্য ভাড়ায় টাকায় সহজ কিস্তিতে জমির মালিকানাসহ ফ্ল্যাট হস্তান্তর করা। আমাদের প্রাথমিক টার্গেট পোশাক শিল্পের পেশাজীবি।

তিনি প্লট ও ফ্ল্যাট পজিশন বিক্রির নিয়ম সম্পর্কে জানান, প্রথমে জমির মূল্য পরিশোধ করলে আমরা জমির মালিকানা সাফ কবলায় দলিল করে দিই। পরে জমির মালিকরা একত্রে ফ্ল্যাট নির্মাণ কাজ শেষ করবে। রুপালী আবাসন সিটি এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে কাজ এগিয়ে নিবে। এবং মালিকরা কিস্তিতে কোম্পানীকে টাকা পরিশোধ করবে। অথবা ক্রেতা ইচ্ছে করলে প্রতি বর্গফুটের মূল্য ২৫০০ টাকা নির্দিষ্ট করে ফ্ল্যাট ক্রয় করতে পারবেন।

তিনি বলেন, আমাদের সকল ভবন বুয়েট ইঞ্জিনিয়ার দ্বারা ডিজাইনকৃত ও সার্বিক তত্বাবধানে নির্মিতব্য যা ৮+ মাত্রা ভূমিকম্প সহনীয় হবে। উন্নতমানের রড, সিমেন্ট, পাথর, সিলেটের বালু, উন্নতমানের দেশসেরা পাইপ, ফিটিংস, ক্যাবল, দরজা, জানলা আর সকল উন্নতমানের কনস্ট্র্যাকশন ম্যাটেরিয়ালস দিয়ে আমাদের ভবনের কাজ শেষ হবে। ভবন নির্মানের জন্য মালিকদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। যাতে তারা বাজার দর, ম্যাটেরিয়ালস এর গুণগত মান আর নির্মাণ ব্যয় সম্পর্কে অবগত থাকতে পারেন। ভবনে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সিকিউরিটি গার্ড, সার্বক্ষণিক সিসিটিভি পর্যবেক্ষণ ও ভিডিও ডোর বেলের সমন্বয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। অত্যাধুনিক লিফট, স্ট্যান্ডবাই জেনারেটর সুবিধা থাকবে।

নির্মানাধীন ভবন

তিনি বলেন, রুপালী আবাসনে প্লট কিনে বুকিং দিলে পরবর্তীতে প্রয়োজনে ব্যাংক লোন প্রাপ্তিতে সহযোগিতা করা হবে। প্রতিটি ফ্ল্যাটের আয়তন হবে ১২০০+ স্কয়ারফুট। প্রতিটি ভবনে ফ্ল্যাটের পরিমাণ হবে ৩৬টি।

তৈরী পোশাক শিল্পের সিনিয়র কমপ্লায়েন্স পেশাজীবি ও রুপালী আবাসনের মার্কেটিং ডাইরেক্টর মি. এএইচএম কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, আমি রুপালী আবাসনে প্লট কিনেছি। আমাদের ভবনের কাজ চলছে। তাদের সাথে যোগাযোগ, বুকিং, ও পরবর্তী সকল কাজ অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে সম্পন্ন হয়েছে। আশা করছি, আগামী বছর আমাদের ভবনের কাজ শেষ হবে। এছাড়া সম্প্রতি আমি রুপালী আবাসনের সাথে মার্কেটিং ডাইরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছি। আমি বিশ্বাস করি, পোশাক শিল্পে কর্মরত পেশাজীবিরা এখানে নিজের ফ্ল্যাট বরাদ্ধ দিলে আমি সর্বোচ্চ সহযোগিতা দিতে পারবো। রুপালী আবাসনে গ্রাহকরা শতভাগ বিশস্ততা ও স্বচ্ছ্বতার সাথে সার্ভিস প্রদান পাবে।


আর্কাইভ