ঢাকা শনিবার, অক্টোবর ১৯, ২০১৯



সাপ্তাহিক ছুটির আগে বা পরে ছুটি নিলে …

ড. উত্তম কুমার দাস : বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ এর বিধান অনুসারে, একজন শ্রমিক বছরে নিম্নলিখিত ছুটি পাওয়ার অধিকারীঃ

(ক) মুজুরিসহ বার্ষিক ছুটি (যার নিয়ম নীচে দেওয়া হ’ল), শ্রম আইন, ১১৭ ধারা);
(খ) নৈমিত্তিক ছুটি (পঞ্জিকা বছরে ১০ দিন), ১১৫ ধারা;
(গ) পীড়াজনিত ছুটি (পঞ্জিকা বছরে ১৪ দিন), ১১৬ ধারা;
(ঘ) উৎসব ছুটি (পঞ্জিকা বছরে ১১ দিন), ১১৮ ধারা;

মজুরীসহ বার্ষিক ছুটি পাওয়ার যোগ্যতা হ’ল- কোন প্রতিষ্ঠানে অবিছিন্নভাবে এক বছর চাকরী পূর্ণ করা। আর কোন প্রতিষ্ঠানে অবিচ্ছিন্নভাবে কোন সময়ের জন্য কাজ সম্পূর্ণ করা বুঝাতে নীচের দিনগুলিও ধরতে হবেঃ

(১) কোন বন্ধের দিন;
(২) মজুরীসহ ছুটির দিন;
(৩) পীড়া বা দুর্ঘটনার কারণে মুজুরিসহ বা মজুরী ছাড়া কোন ছুটি;
(৪) অনধিক ১৬ সপ্তাহ পর্যন্ত প্রসূতি ছুটি;
(৫) কোন লে-অফ;
(৬) আইন সম্মত কোন ধর্মঘট বা বে-আইনী কোন লক- আউট। (শ্রম আইন, ধারা ১১৭)।

আর মজুরীসহ বার্ষিক ছুটির হার হবেঃ
১। দোকান বা বাণিজ্য বা শিল্প প্রতিষ্ঠান বা কোন কারখানা অথবা সড়ক পরিবিহন প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রতি ১৮ দিন কাজের জন্য একদিন।
২। চা বাগানের ক্ষেত্রে প্রতি ২২ দিন কাজের জন্য এক দিন।
৩। সংবাদপত্রে ১১ দিন কাজের জন্য এক দিন।

আর শ্রমিক অপ্রাপ্ত বয়স্ক হলে তার হিসাব ভিন্ন।

কোন ১২ মাসে অর্জিত বার্ষিক ছুটি ঐ মেয়াদে মধ্যে না করলে তা পরের ১২ মাস মেয়াদে প্রাপ্য ছুটির সঙ্গে যোগ হবে। তবে এই ছুটি-ব্যালেন্স কারখানার ক্ষেত্রে ৪০ দিন এবং চা-বাগান, দোকান বা বাণিজ্য অথবা শিল্প প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ৬০ দিন হবে। অপ্রাপ্ত বয়স্ক শ্রমিকের ক্ষেত্রে এই হিসাব যথাক্রমে ৬০ দিন এবং ৮০ দিন হবে।

মঞ্জুরকৃত বার্ষিক ছুটির সময়ের মধ্যে অন্য কোন ছুটি পড়লে উক্ত ছুটি এর অন্তর্ভুক্ত হবে। (শ্রম আইন, ধারা ১১৭)। অর্থাৎ কারও ক্ষেত্রে যদি শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি হয়, তাহলে বৃহস্পতিবার বা শনিবার ছুটি নিলে তা উক্ত ছুটির সঙ্গে যোগ হবে। আরও সহজভাবে বললে কেউ বৃহস্পতিবার ছুটি নিলে তা শুক্রবারসহ দুই দিন ধরতে হবে। আর বৃহস্পতি এবং শনিবার ছুটি নিলে তাহলে মোট তিন দিন ছুটি হিসাবে গণ্য হবে।

নৈমিত্তিক ও পীড়া ছুটির ক্ষেত্রে উক্ত ছুটির আগে বা পরে সাপ্তাহিক বা উৎসব ছুটি থাকলে তা নৈমিত্তিক বা পীড়া ছুটির সঙ্গে যোগ হবে না। অর্থাৎ ধরুন কেউ বৃহস্পতিবার নৈমিত্তিক বা পীড়া ছুটি ভোগ করলেন এবং শনিবার কাজে ফেরত আসলেন (যেখানে শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি) তখন একদিন ছুটি ধরা হবে- শুধুমাত্র বৃহস্পতিবার।

আর নৈমিত্তিক বা পীড়া ছুটির মধ্যে কোন সাপ্তাহিক বা উৎসব ছুটি পড়লে উক্ত ছুটি মূল ছুটির (নৈমিত্তিক বা পীড়া) অন্তর্ভুক্ত হবে। অর্থাৎ কেই বৃহস্পতি এবং শনিবার (যেখানে শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি) নৈমিত্তিক বা পীড়া ছুটি কাটালে- দুই দিন ছুটি ভোগ করলেও সেখানে তিন দিন ধরা হবে।

কেউ বছরের কোন অংশে কাজে যোগদান করলে হারাহারিভাবে ছুটি পাবেন। (বাংলাদেশ শ্রম বিধিমালা, ২০১৫; বিধি ১০৬]।

  • লেখক : এডভোকেট, সুপ্রীম কোর্ট অব বাংলাদেশ
  • ই-মেইল: advocateudas@gmail.com


আর্কাইভ